kidarkar

বঙ্গবন্ধুর ভা;স্কর্য ভাঙচুরকারীদের সমূলে উৎপাটন করা হবে

বাংলাদেশ

নাহিদ হাসান | ২০ ডিসেম্বর ২০২০, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ০৩:৩৮ অপরাহ্ন

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্ক;র্য ভাঙচু;কারীদের বাংলাদেশের মাটি থেকে সমূলে উৎপাটন করা হবে। বাংলার মাটিতে পরাজিত পাকিস্তানিদের দোসররা আর কখনও মাথা তুলে দাঁড়াতে পারবে না।

রোববার (২০ ডিসেম্বর) রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে বঙ্গবন্ধুর ভাস্ক;র্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।
ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুর ভা;স্কর্য ভেঙেছে, তাদেরকে একাত্তরের মুক্তি’যু;দ্ধের মতো মোকাবিলা করে আবার পরাজিত করব। তাদেরকে আমাদের পায়ের নিচে পড়ে ক্ষমা চাইতে হবে।’

ভা;স্কর্য আর মূর্তি এক নয় উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ভা;স্কর্যের নান্দনিক দিক রয়েছে। এটি শিল্প। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভা;স্কর্য নির্মাণ করা হচ্ছে, যাতে করে তাঁর আদর্শ ও চেতনাকে এ দেশের ভবিষ্যৎ বা আগামী প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা যায়। ভা;স্কর্য হচ্ছে স্মৃতিচিহ্ন বা স্মারক। এর মাধ্যমে ভবিষ্যত প্রজন্ম মুক্তিযু;দ্ধ ও স্বাধীনতার চেতনায় উদ্বুদ্ধ হবে এবং মানবপ্রেমে ও মানবসেবায় ব্রতী হবে।

তিনি আরও বলেন, আজকে যারা বঙ্গবন্ধুর ভা;স্কর্য ভেঙেছে এবং যারা উস্কানি দিয়েছে, তারা এটি সুপরিকল্পিতভাবে করেছেন। এই স্বাধীনতাবিরোধী পরাজিত শক্তি দেশিয়-আন্তর্জাতিক ঘাতকচক্রের যোগসাজশে ১৯৭৫ সালে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালি জাতীয়তাবাদ এবং ন্যায়-সমতার ভিত্তিতে একটি অসাম্প্রদায়িক ও গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা গড়তে চেয়েছিলেন। ঠিক সেই সময়ে ঘাতকচক্র বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে স্বাধীনতা ও মুক্তিযু’দ্ধের চেতনাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, দর্শন ও চেতনাকে চিরতরে মুছে ফেলতে চেয়েছিল। পরাজিত এই ধর্মান্ধগোষ্ঠী ১৯৭৫-এর পর থেকে ২১ বছর ধরে মুক্তিযু’দ্ধের চেতনা ও আদর্শকে সুপরিকল্পিতভাবে ধ্বংস করেছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সংস্থা বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলের (বিএআরসি) অধীনস্থ জাতীয় কৃষি গবেষণা সিস্টেমভুক্ত (এনএআরএস) ১২টি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের আয়োজনে এ মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। এতে কৃষিসম্প্রসারণ অধিদফতর, বিএডিসিসহ অন্যান্য সংস্থার কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও অংশ নেন।

মানববন্ধনে কৃষিসচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রসারণ) মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল, বিএআরসি’র নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. শেখ মোহাম্মদ বখতিয়ারসহ বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • *
  • এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আরও খবর

    kidarkar