kidarkar

ঘু’ষের টাকা না পেয়ে নববধূকে পে’টালো পুলিশ

বাংলাদেশ

হাসান রাফি | ০৪ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:১২ অপরাহ্ন

ঘুষের ১০ হাজার টাকা না পেয়ে এক নববধূকে বেধড়ক মা’রপিট করেছেন বগুড়ার গাবতলি থানার এক এসআই।

মনিরা আকতার নামের আ’হত ওই নববধূ বগুড়া মোহাম্ম’দ আলী হাস*পাতালে চিকিৎসাধীন।

তিনি গাবতলীর ফজিলা আজিজ মেমোরিয়াল টেকনিক্যাল কলেজে পড়াশোনা করেন।

সম্প্রতি একই উপজে’লার সোনারায় ইউপির মধ্যখুপি গ্রামের ইম’রান হোসেনের সঙ্গে তার প্রেমের স’ম্পর্ক গড়ে ওঠে।

তবে তাদের স’ম্পর্কের বিষয়টি মেনে নেননি মনিরার বাবা জাহিদুল ইস’লাম। তিনি উল্টো ইম’রানের নামে গাবতলী থানায় লিখিত অ’ভিযোগ করেন।

সোমবার দুপুরে হাস*পাতালের সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন মনিরা আকতার নামের ওই নববধূ জানান, থানা থেকে অ’ভিযোগের ত’দন্তভার পান গাবতলী থানার এসআই রিপন মিয়া।

তিনি ত’দন্ত কাজের অংশ হিসেবে ইম’রান ও মনিরার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে প্রকৃত ঘটনা জানেন।

এরপর বিষয়টি ঝুলিয়ে রেখে অ’ভিযোগকারী মনিরার বাবা জাহিদুল ও প্রেমিক ইম’রান দুইজনের কাছ থেকেই মাঝে মাঝেই টাকা হাতিয়ে নিতেন।

এই অবস্থায় গত ১ নভেম্বর মনিরা ও ইম’রান নিজেরাই বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এর পর থেকে মনিরা তার স্বামী ইম’রানের গ্রামের বাড়িতে বসবাস শুরু করে।

খবরটি জানতে পেরে ত’দন্তকারী কর্মক’র্তা এসআই রিপন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রোববার রাত ১০টার দিকে ইম’রানের বাড়ি ঘেরাও করে। এরপর লাথি মে’রে ঘরের দরজা ভেঙে নব দম্পতির ঘরে ঢুকে পড়ে।

এ সময় এসআই রিপন অ’ভিযোগের ত’দন্তকারী হিসেবে কেন তাকে না জানিয়ে বিয়ে সম্পন্ন করা হলো মনিরার কাছে তা জানতে চান।

মনিরা কারণ জানালে, ক্ষুব্ধ হয়ে এসআই রিপন মিয়া বলেন, ‘ঠিক আছে বিয়ে করেছিস ভালো কথা, এখন ১০ হাজার টাকা দে।’ এই বলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

মনিরা টাকা দিতে অ’পারগতা প্রকাশ করলে রিপন মিয়া আরও ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে চড়-থাপড়, কিল-ঘুষি মা’রতে থাকে। এক পর্যায়ে তিনি (এসআই) মনিরাকে লা’ঠিপে’টা করেন।

এ সময় মনিরার স্বামী ইম’রান তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে গেলে তাকেও মা’রপিট করা হয়।

এক পর্যায়ে তাদের চি’ৎকার চেঁচামেচি শুনে গ্রামের লোকজন এগিয়ে আসলে এসআই রিপন মিয়া দ্রুত ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন।

পরে মাঝরাতেই আ’হত অবস্থায় মনিরাকে বগুড়া মোহাম্ম’দ আলী হাস*পাতালে ভর্তি করা হয়।

হাস*পাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সামসুজ্জামান বলেন, মনিরার শারীরিক আ’ঘাত বেশ গুরুতর। হাস*পাতালে ভর্তি নিয়ে তাকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

অ’ভিযোগের বিষয়ে এসআই রিপন মিয়া জানান, আমি মা’রপিট করিনি। অ’ভিযোগটি ত’দন্ত করার জন্য সেখানে গিয়েছিলাম। এর বাইরে কোনো কিছু নেই।

এ বিষয়ে গাবতলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনির হোসেন বলেন, এসআই রিপন মিয়া দোষী হলে তাকে শা’স্তি দেয়া হবে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • *
  • এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আরও খবর

    kidarkar