kidarkar

তিনবার জুয়াড়ির প্রস্তাব, প্রতিবারই প্রত্যাখান করেন সাকিব

খেলাধুলা

হাসান রাফি | ৩০ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ০৪:৪৩ অপরাহ্ন

১৮ মাসের জন্য নয়, শেষপর্যন্ত ২ বছরের জন্য বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে নিষিদ্ধ করেছে আইসিসি। ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পেয়ে সেটাকে প্রত্যাখ্যান করলেও আইসিসি কিংবা বিসিবিকে না জানানোর কারণেই এই শাস্তি আরোপ করা হলো ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটির পক্ষ থেকে। তবে, দোষ স্বীকার করার কারণে, ১ বছরের শাস্তি বাতিল করেছে আইসিসি। মঙ্গলবার আইসিসির পক্ষ থেকেই এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সব ধরনের ক্রিকেট কর্মকাণ্ড থেকে আগামী এক বছর নিষিদ্ধ থাকবেন তিনি। আইসিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দিপক আগারওয়াল নামের এক ব্যক্তির থেকে সাকিব তিনবার জুয়ার প্রস্তাব পান। তিনবারই প্রস্তাব প্রত্যাখান করেন তিনি। কিন্তু বিসিবি কিংবা আইসিসিকে একবারও বিষয়টি বলেননি তিনি। আইসিসির কোড অব কনডাক্টের তিনটি ধারা ভাঙায় তাকে তাই এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। সাকিব তিনবারই আইসিসির ২.৪.৪ ধারা ভেঙেছেন।

প্রথম অভিযোগে বলা হয়েছে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে শ্রীলংকা এবং জিম্বাবুয়েকে নিয়ে আয়োজিত ত্রিদেশীয় সিরিজ অথবা ২০১৮ সালের আইপিএলে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব পান সাকিব। সেই প্রস্তাব প্রত্যাখান করলেও আইসিসির আকসুকে জানায়নি সাকিব। দ্বিতীয় অভিযোগে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ত্রিদেশীয় সিরিজে দুর্নীতিতে যুক্ত হওয়ার দ্বিতীয় প্রস্তাব পান সাকিব আল হাসান। কিন্তু দুর্নীতিকে প্রভাবিত করা কিংবা দুর্নীতি করার সেই প্রস্তাবের কথাও কতৃপক্ষকে জানায়নি সাকিব।

তিনি তৃতীয় প্রস্তাবটিও পান একই বছর। ২০১৮ সালের আইপিএলে তাকে ম্যাচ পাতানোর প্রস্তাব দেয় জুয়াড়িরা। সে বছরও তিনি সানরাইজার্স হায়দরাবাদের হয়ে খেলেছেন। পাঞ্জাবের বিপক্ষে দুই লেগের ম্যাচেই এপ্রিলে মুখোমুখি হয় হায়দরাবাদ। সাকিবকে ওই দুই ম্যাচের একটিতে জুয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়। সেবারও আইসিসিকে কোন অভিযোগ দেননি সাকিব।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • *
  • এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আরও খবর

    kidarkar