kidarkar

এমপিও পায়নি ভাইয়ের প্রতিষ্ঠান, যা বললেন শিক্ষামন্ত্রী

বাংলাদেশ

রানা মিয়া | ২৭ অক্টোবর ২০১৯, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ০৫:৪৬ অপরাহ্ন

চাঁদপুরে অবস্থিত শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি ও তার ভাইয়ের গড়া প্রতিষ্ঠান সদ্য প্রকাশিত এমপিওভুক্তির তালিকায় স্থান পায় নি। কেনো পায়নি এমন প্রশ্নে দিপু মনি জানান, ‘আমরা রাজনৈতিক বিবেচনার বাইরে গিয়ে তালিকায় করেছি। আর আমার প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির নীতিমালা পূরণ করতে পারেনি। প্রতিষ্ঠানের রেজাল্ট অত্যন্ত ভালো হলেও শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম ছিলো। যার কারণে এমপিওভুক্তি হয়নি।’

সদ্য ঘোষিত ২৭৩০ প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির বিষয়ে নানা অসঙ্গতি এবং জনমনে বিভিন্ন ধরণের প্রশ্ন দানা বাঁধায় রোববার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বিকাল ৪টায় ব্যানবেইস সম্মেলন কক্ষে এমপিও নিয়ে উত্থাপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন শিক্ষামন্ত্রী।

শিক্ষকের আর্থিক নিরাপত্তা ছাড়া মানসম্পন্ন শিক্ষা সম্ভব নয় মন্তব্য করে দীপুমনি বলেন, মানসম্পন্ন শিক্ষা শুধু একটি বিষয়ের সঙ্গে জড়ি নয়। অনেক বিষয়ের উপর জড়িত। ধরেন আমি শিক্ষার অবকাঠামো দিলাম, শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দিলাম সবই করলাম তাহলে কি শিক্ষা মানসম্পন্ন হবে? সবকিছুর সঙ্গে শিক্ষকের আর্থিক নিরাপত্তাও জড়িত। আবার মনে করেন শিক্ষকের আর্থিক নিরাপত্তা দিলাম কিন্তু অবকাঠামো দিলাম না বা অবকাঠামো দিলাম না, তাহলেও মানসম্পন্ন শিক্ষা সম্ভব নয়।

অনেক স্কুলের শিক্ষার্থী নেই পাসের হার নেই এগুলো কিভাবে এমপিওভুক্ত হলো এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ভুল তথ্য দিয়ে এমপিও হওয়া স্কুলগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যেসব কর্মকর্তারা এসব তথ্য দিয়েছেন সেসব কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে আমাদের যাচাই বাছাইয়ে সেগুলোর কোনো ভুল নেই। তারপরও ফের যাচাই করে দেখবো। এ বিষয়ে সবার স্কুলের ম্যানেজিং কমিটি সহ সবার সহযোগিতা চান শিক্ষামন্ত্রী।

দীপু মনি বলেন, ‘এখন থেকে প্রতিবছরই এমপিওভুক্ত করা হবে। বছরের নির্দিষ্ট একটা সময়ে আবেদন করার আহ্বান করা হবে। আর যেগুলো এখন এমপিওভুক্ত হলো এবং আগেও যে ২৫ হাজার প্রতিষ্ঠান রয়েছে তাদের প্রতিও মন্ত্রণালয়ের সজাগ দৃষ্টি থাকবে। যদি কোনোক্রমে নীতিমালার মানদণ্ড বজায় রাখতে না পারে তাহলে এমপি স্থগিত করা হবে।’

যুদ্ধাপরাধী ও বিতর্কিত রাজনৈতিক ব্যক্তিদের নামে স্কুল এমপিওভুক্তির বিষয়ে তিনি বলেন, যেসব যুদ্ধাপরাধী নামের স্কুলের নাম এসেছে তারা দেশের লোকের কাছে তেমন পরিচিত কেউ নন। হয়তো স্থানীয়ভাবে পরিচিত আছে। তবে স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে খবর নেওয়া হবে। আর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটা কার্যক্রম চলমান আছে সেটা হলো বিতর্কিত নাম বাদ দিতে হবে। সেক্ষেত্রে এরকম প্রমাণ হলে কর্তৃপক্ষ থেকে আবেদনের মাধ্যমে নাম পরিবর্তন করা হবে। রাজনৈতিক বিতর্কিত ব্যক্তিদের ব্যাপারেও একই নিয়ম থাকবে।

ভাড়া বাড়িতে থাকা প্রতিষ্ঠান এমপিও শর্ত ভঙ্গ করেনি বলেও মনে করি শিক্ষামন্ত্রী। এমপিও পেয়ে ভবন নির্মাণের বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো আগেই টেন্ডার করা ছিল। এমপিও পাওয়ার কথা শুনে তারা তড়িঘড়ি করে কাজ শুরু করেছেন। এটা কোনো নীতিভঙ্গ নয়।

একটি আগে এমপিও পাওয়া স্কুল এমপিওভুক্ত হওয়ার প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ওই স্কুলটি আসলে উচ্চ মাধ্যমিকের জন্য আবেদন করে ছিলো মনে হয়। এটা ইনপুট দেয়ার সময় হয়তো ভুলটা হয়েছে। তারপরও আমার কাছে মনে হয়, আমরা যদি আগের ২৫ হাজারের তালিকাটা দেখে করতে পারলাম আরো ভালো হতো। এরকম ভুল হতো না। একই ভাবে শাহজালাল সরকারি কলেজের ক্ষেত্রেও একই ভুল হয়েছে। কারণ জাতীয়করণ আর এমপিওভুক্তির প্রক্রিয়াটা ভিন্ন। তারপরও জাতীয়করণের তালিকাটা দেখে করলে ভালো হতো।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • *
  • এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আরও খবর

    kidarkar