kidarkar

এবার কুমিল্লায় পু’লিশের গু’লিতে স্কুল ছাত্রসহ গু’লিবি’দ্ধ ২

বাংলাদেশ

হাসান রাফি | ২৫ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ০৯:৫১ পূর্বাহ্ন

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে আ’সামী গ্রে’ফতার করতে গিয়ে বা;কবি;তন্ডার এক পর্যায়ে পু;লিশের গু’লিতে ২জন গু’লিবি;দ্ধসহ ৮ জন আ;হত হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার ভোররাতে উপজেলার বাঙ্গড্ডা উত্তর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা যায়, বৃহস্পতিবার ভোররাতে নাঙ্গলকোট থানার এ’এস’আই আব্দুর রহিম ও তার সঙ্গীয় ফোর্স উপজেলার বাঙ্গড্ডা গ্রামের মফিজুর রহমানের ছেলে অটোরিক্সা চালক মো: সোহাগকে (২৮) গ্রে’ফতার করতে যায়।

এসময় আ’সামী সোহাগ জা’মিনে আছেন বলে দা’বী করলে পু’লিশ তার জা’মিননামা দেখতে চায়। সোহাগ জা’মিন নামা দেখালেও পু’লিশ তাকে হা’তকড়া পরানোর চে’ষ্টা করে। এনিয়ে বা’কবি’তন্ডা ও শোর চি’ৎকার শুরো হলে বাড়ীর পাশ্ববর্তী লোকজন এসে জড়ো হয়। এসময় স্থানীয়রাও পু’লিশের উ’পর ক্ষি’প্ত হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে পু’লিশ এলো’পা’তাড়ি কয়েক রা’উন্ড গু’লি চা’লায়। এতে সোহাগের ভাই অটোরিক্সা চালক ফারুক হোসেন (২৩) ও পাশ্ববর্তী বাড়ীর কবির আহমদের ছেলে বাঙ্গড্ডা স’রকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র রাকিব (১১) গু’লিবিদ্ধ হয়ে আ’হত হয়।

এছাড়া পু’লিশের মা’রপিটে সোহাগের মা দৃষ্টি প্র’তিব’ন্ধি রুপিয়া বেগম (৫৫), বড় ভাই শাহিন মিয়া (২৮) ও গর্ভবতী স্ত্রী ফাতেমা বেগম (২২) আ’হত হয়। গু’লিবি’দ্ধ হয়ে আ’হতদের কুমিল্লা মে’ডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পু’লিশ গু’লিবি’দ্ধ ফারুক ও রাকিবকে হাসপাতালে নেয়ার কথা বলে বাড়ী থেকে কিছু দুর নিয়ে তাদেরকে সিএনজি চালিত অটো রিক্সা থেকে ফে’লে দিয়ে চলে যেতে চাইলে স্থানীয়রা ধা’ওয়া করে এ’এস’আই আব্দুর রহিমসহ দুই পু’লিশ সদ’স্যকে আ’টক করে রাখে।

পরে সহকারী পু’লিশ সুপার (চৌদ্দগ্রাম সার্কেল) সাইফুল ইসলাম, নাঙ্গলকোট থানা অ’ফিসার ই’নচার্জ মামুন অর রশিদ ও পু’লিশ পরির্দশক (ত’দন্ত) আশ্রাফুল ইসলাম ঘটনার স্থলে গিয়ে পু’লিশ স’দস্যদের উ’দ্ধার করে এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এ ঘটনায় পু’লিশের তিন স’দস্য আ’হত হয়। আ’হতরা হলেন এ’এস’আই আব্দুর রহিমকে কুমিল্লা মে’ডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং পু’লিশ স’দস্য মো: মানিক ও জাহিদকে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বা’স্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

পু’লিশের হা’মলায় আ’হত সোহাগের মা দৃষ্টি প্র’তিব’ন্ধি রুফিয়া বেগম ও তার গর্ভবতী স্ত্রী ফাতেমা বেগম জানান, জা’মিনে থাকা সোহাগকে পু’লিশ ধ’রে নিয়ে যেতে চাইলে পরিবারের লোকদের সাথে কথা কা’টাকা’টি হয়। এসময় পু’লিশ ক্ষি’প্ত হয়ে গু’লি চা’লায় ও আমাদেরকে মা’রপিট করে আ’হত করে। গু’লিতে ফারুক ও রাকিব গু’লিবি’দ্ধ হয়।

স্থানীয় ই’উনিয়ন পরিষদ সদস্য খোরশেদ আলম বলেন, আমি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে দেখি দুইজন গু’লিবি’দ্ধ এবং স্থানীয়রা পু’লিশের দুই স’দস্যকে অ’বরু’দ্ধ করে রেখেছে। পরে পু’লিশ কর্মকর্তারা এসে পু’লিশ স’দস্যদের উ’দ্ধার করে নিয়ে যায় এবং পু’লিশ পরির্দশক (ত’দন্ত) আশ্রাফুল ইসলাম আ’হতদের চি’কিৎসার জন্য ৫ হাজার টাকা প্রদান করেন।

নাঙ্গলকোট থানা পরিদর্শক (ত’দন্ত) আশ্রাফুল ইসলাম বলেন, সোহাগের বি’রুদ্ধে কয়েকটি মা’মলা রয়েছে। পু’লিশ তাকে ধ’রতে গেলে তারা ডা’কাত বলে চি’ৎকার করলে স্থানীয় কিছু লোকজন এসে পু’লিশকে ধা’ওয়া করে। এসময় একজন পু’লিশ স’দস্যের অ’স্ত্র ধ’রে টা’না হে’ছড়া করলে ব’ন্দুকের গু’লি ছু’টে ২জন আ’হত হয়। আ’হতরা আ’শংকা মুক্ত, তাদের চি’কিৎসার খরচ আমরা বহন করবো। এবিষয়ে একটি ত’দন্ত কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া চলছে।

সুত্রঃ খবর তরঙ্গ

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • *
  • এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আরও খবর

    kidarkar