kidarkar

কাশ্মীরকে উ’ন্মুক্ত জে’লখানায় প’রিণত করে তাদের সঙ্গে প’শুর মতো ব‍্যবহার করা হচ্ছে :মেহবুবা কন‍্যা

বিশ্ব

হাসান রাফি | ২৫ অক্টোবর ২০১৯, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ০৯:২১ পূর্বাহ্ন

পুরো কাশ্মীরকে উন্মুক্ত জে’লখানায় পরিণত করা হয়েছে‌। এবং কাশ্মীরীদের সঙ্গে তাদের ভূমিতেই পশুর মতো ব‍্যবহার করা হচ্ছে, কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার পরেই এমটাই অভিযোগ করলেন জম্মু-কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ‍্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতির কন‍্যা ইলতিজা জাভেদ। তাঁর আরও অভিযোগ, কাশ্মিরিদের কথা বলায়, কাজকর্মে সম্পূর্ণ বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে।

এতটাই প্রশাসনিক বিধি নিষেধ কঠোর করা হয়েছে জরুরী বা আপদকালীন কোন হেল্প লাইনও কাজ করছে না। কেন্দ্রের ৩৭০ ধারা রোধ করার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মোদি সরকারের প্রতি ক্ষোভ উগড়ে দিয়ে এভাবেই কড়া প্রতিক্রিয়া দিলেন ইলতিজা জাভেদ।

ইলতিজার কথায়, ‘আমি মনে করি গোটা দেশের এবং আন্তর্জাতিক বিশ্বের জানা উচিত এখানকার মানুষদের সঙ্গে কি করা হচ্ছে। তাদের সঙ্গে কি ধরনের ব‍্যবহার করা হচ্ছে।তাদের সঙ্গে পশুর মতো আচরণ করা হচ্ছে। তাদের ঘরে আটকে রাখা হচ্ছে। তারা কারও সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছে না। জরুরি প্রয়োজনের জন্য কোনো হেল্পলাইন নেই।’

ইলতিজা আরও জানান, তাঁর মাকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়েছে। কাউকে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না। পরে তাঁর মাকে আটক করে হরি নিবাস গেস্ট হাউসে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য , হরি নিবাস গেস্ট হাউজ হচ্ছে সেই জায়গা যা আধা সামরিক বাহিনী ব্যবহার করত কাউকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য । পরে এটিকে গেস্ট হাউজ হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। ইলতিজা আরও বলেন, ‘মেহবুবাজিকে এখান ( বাসস্থান ) থেকে সন্ধ্যা ৬টা থেকে ৬ টা ৩০ মিনিট নাগাদ সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

৪-৫ জনের একটি টিম গ্রে’ফতারি পরােয়ানা নিয়ে আসে। তাঁরা তাকে ( মেহবুবা ) মাত্র ১৫ – ২০ মিনিট সময় দেয় ব্যাগপত্র গুছিয়ে নিয়ে তাদের সাঙ্গে যাওয়ার জন্য। তারা তাঁকে হরি নিবাসে নিয়ে গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত এর থেকে বেশি কিছু জানতে পারিনি। শুধু এটুকু জানতে পেরেছি, সেখানে তার মতাে ওমর আবদুল্লাহ সাহেবকেও রাখা হয়েছে। এর বেশি আমার কাছে আর কোনও তথ্য নেই। কারণ, যােগাযােগ্য ব্যবস্থা স’ম্পূর্ণ বি’চ্ছন্ন করে দেওয়া হয়েছে। আমরা তাদের সঙ্গে কোনও রকমের যােগাযোগ করতে পারছি না। এখন মনে হচ্ছে , আমরা যেন আর কাশ্মীরে নেই উন্মুক্ত জে’লে রয়েছি।

কদিন ধরে এখানকার মানুষ যা নিয়ে । খুব ভীত ছিল, তা হয়ে গিয়েছে। কী ঘটতে চলেছে এ নিয়ে তারা ( কাশ্মীরিরা ) যা ভাবছিল , তা ঘটে গিয়েছে। কিন্তু যেভাবে রাতারাতি ৩৭০ ধারা বিলােপ করা হল , তা খুব বড় ভুল। এখন এখানকার পরিস্থিতি আ’তঙ্কের। আমি নিশ্চিত এর পরে যা হবে মানুষ খুব রেগে যাবে। যদিও এখন মানুষকে তাদের আ’ক্রোশ প্রকাশ করার কোন সুযােগই দেওয়া হচ্ছে। তবে এটা ঠিক যা করা হয়েছে, খুব ভাবনা-চিন্তা করেই করা হয়েছে।

আপনার মতামত দিন

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • *
  • এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আরও খবর

    kidarkar