আবরার হ’ত্যার আ’সামি অমিত-তোহার ৫ দিনের রি’মান্ড মঞ্জুর

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাত হ’ত্যা মা’মলায় অমিত সাহা ও তোহাকে ৫ দিন করে রি’মান্ড দিয়েছেন আ’দালত। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) এই রি’মান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আ’দালত।

এর আগে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আ’দালতে আবরার হ’ত্যা মা’মলায় গ্রে’ফতার ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহা ও এজহারভুক্ত আ’সামি হোসেন মোহাম্ম’দ তোহার ১০ দিনের রি’মান্ড আবেদন করে পু’লিশ।

গত বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সকাল এগারোটার দিকে রাজধানীর সবুজবাগ এলাকা থেকে অমিত সাহা ও বিকেল তিনটায় গাজীপুরের মাওয়া থেকে তোহাকে গ্রে’ফতার করে ডিবি পু’লিশ।

অমিত বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র। বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইনবিষয়ক সম্পাদক তিনি। আবরার হ’ত্যাকা’ণ্ডের পর থেকেই পলাতক ছিলেন তিনি। তার কক্ষেই ডেকে নিয়ে প্রথমে পে’টানো হয়। হোসেন মোহাম্ম’দ তোহা বুয়েটের এমই বিভাগের ১৭তম ব্যাচের ছাত্র। তিনি এ মা’মলার মা’মলার ১১ নম্বর আ’সামি।

গত রোববার (৬ অক্টোবর) দিবাগত মধ্যরাতে বুয়েটের সাধারণ ছাত্র ও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবরার ফাহাদকে শেরে-ই-বাংলা হলের দ্বিতীয় তলা থেকে অচেতন অবস্থায় উ’দ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাস*পাতালে নিয়ে যান। সোমবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃ’ত ঘোষণা করেন। তার শরীরে অসংখ্য আ’ঘাতের চিহ্ন ছিল।

আবরার ফাহাদ বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের (ইইই) বিভাগের লেভেল-২ এর টার্ম ১ এর ছাত্র ছিলেন। তিনি শের-ই-বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন। তার বাড়ি কুষ্টিয়া শহরে। কুষ্টিয়া জে’লা স্কুলে তিনি স্কুলজীবন শেষ করে নটরডেম কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন।