চেয়ারম্যান ছাড়াই চলছে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম বৈঠক অতঃপর

সংগঠনের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে ও আসন্ন সম্মেলনকে সামনে রেখে বৈঠকে বসেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্যরা। কিন্তু সভায় উপস্থিত নেই দলের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।ত্যা
শুক্রবার সকাল ১০টায় যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বৈঠকটি শুরু হয়। সভায় সভাপতিত্ব করছেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা দলের এক বৈঠকে সহযোগী সংগঠন যুবলীগের নেতাদের নানা কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করেন। এরপর যুবলীগ নেতাদের ৬০টি জুয়ার আখড়া বা ক্যাসিনো চালানোর খবর আসে কয়েকটি সংবাদপত্রে। পরে এসব স্থানে অভিযানে নামে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। গ্রেপ্তার করা হয় যুবলীগের বেশ কয়েকজন নেতাকে। তাদের মধ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন সম্রাটও আছেন।

অভিযানের মধ্যেই যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীর সব ধরনের ব্যাংক হিসাব ও লেনদেনের বিবরণী তলব করে বাংলাদেশ ব্যাংক। পরে তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়।

এমন অবস্থায় যুবলীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে সংগঠন নিয়ে চরম হতাশা সৃষ্টি হয়। আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই আওয়ামী যুবলীগ সম্মেলন তারিখ নির্ধারিত করে। আগামী ২৩ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সংগঠনটির সপ্তম জাতীয় কংগ্রেস অনুষ্ঠিত হবে। সেই সম্মেলনে বিতর্কিত নেতাদের সরিয়ে দিয়ে নতুন নেতৃত্ব আনা হবে বলে আভাস পাওয়া যায়।

সাংগঠনিক অবস্থাসহ সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে এবং আসন্ন সম্মেলনকে ঘিরে গত বুধবার সংগঠনটির প্রেসিডিয়ামের বৈঠক ডাকা হয়। কিন্তু হঠাৎ করেই তার আগের রাতে বৈঠক বাতিল করার খবর আসে।

এর দুই দিন পর ফের প্রেসিডিয়ামের বৈঠক ডাকে যুবলীগ। সকাল ১০টায় বৈঠকটি শুরু হলেও সেখানে উপস্থিত নেই সংগঠনটির চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী।

সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদের সভাপতিত্বে সভায় আরও উপস্থিত আছেন শহিদ সেরনিয়াবাত, শেখ শামসুল আবেদীন, আলতাব হোসেন বাচ্চু, মো. সিরাজুল ইসলাম মোল্লা, মজিবুর রহমান চৌধুরী, মো. ফারুক হোসেন, মাহবুবুর রহমান হিরন, আবদুস সাত্তার মাসুদ, মো. আতাউর রহমান, অ্যাডভোকেট বেলাল হোসাইন, আবুল বাশার, মোহাম্মদ আলী খোকন, অধ্যাপক এবিএম আমজাদ হোসেন, আনোয়ারুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার নিখিল গুহ, শাহজাহান ভুইয়া মাখন, ডা. মোখলেছুজ্জামান হিরু ও শেখ আতিয়ার রহমান দিপু।