গেস্টরুমে ভালো কিছু শেখানো হয়, নি’র্যাতন হয় না: ছাত্রলীগ

গেস্টরুমে ভালো কিছু শেখানো হয় উল্লেখ করে ছাত্রলীগ দাবি করেছে, এখানে কোন নি’র্যাতন করা হয় না।

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিনে বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের ম’র্মা’ন্তিক হ’ত্যাকা’ণ্ডে গৃহীত ব্যবস্থার পর্যালোচনা এবং হ’ত্যাকারীদের দ্রুত সময়ে শা’স্তির দাবিতে সংবাদ সম্মেলনে তারা এ দাবি করেন।

গেস্টরুম নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, গেস্টরুম ভালো সংস্কৃতি। এখানে প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনেক নিয়মকানুন শেখানো হয়। ছাত্রলীগ এটাকে পজিটিভ হিসেবেই দেখছে। গেস্টরুমে নেগেটিভ কিছু অ’ত্যন্ত কম হয়।

ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান বলেন, ‘ছাত্রলীগ কোনো অন্যায় অ’পকর্মের প্রশ্রয় ও উৎসাহ দেয় না, দেবে না। আবরার হ’ত্যায় জ’ড়িত ব্যক্তিদের প্রশ্রয় দেওয়া হয়নি। সাংগঠনিকভাবে তাদের ১১ জনকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছে, যা আগে কখনো দেখা যায়নি। যাদের গ্রে’প্তার করা হয়েছে, এর বাইরে আর কারও সংশ্লিষ্টতা থাকলে তাদেরও যেন খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এ ক্ষেত্রে ছাত্রলীগ সর্বোচ্চ সহযোগিতা করবে।’

আবরার হ’ত্যার ঘটনায় একটি কুচক্রী মহল ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে বলেও মন্তব্য করেন জয়। তিনি বলেন, ‘দেশবিরোধী চুক্তির ধোয়া তুলে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে দেশকে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করছে। কিছু নামসর্বস্ব সংগঠন বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এটা মেনে নিতে পারে না। ছাত্রলীগ এ ষড়যন্ত্র সর্বাত্মকভাবে মোকাবিলা করবে।’

এ সময় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সব নেতাকর্মীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানান ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি।

সম্মেলনে দলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেন, ‘এ ঘটনার পরপরই ছাত্রলীগ ব্যবস্থা নিয়েছে, ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে। এখন তারা লজ্জা প্রকাশ করছে। সেই সঙ্গে নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আজ তিনি বার্তা দিতে চান, কোনো ধরনের অ’পকর্ম, আ’পত্তিকর ঘটনার দায় সংগঠন নেবে না। কেউ উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে সংগঠনে অনুপ্রবেশ করে থাকলে তারা যেন কে’টে পড়েন। কোনো ধরনের অ’প’রাধকে ছাত্রলীগ প্রশ্রয় দেবে না।’