বিয়ের পরেও শারীরিক ভাবে সবল থাকতে ৭টি খাবার

পুরুষ মানুষ নাকি দুই প্রকার জীবিত আর বিবাহিত। বিয়ের পর প্রত্যেকের জীবনেই শারিরিক পরিবর্তন দেখা দেয়। এটি মূলত হরমোনজনিত কারণে হয়ে থাকে। এ কারণে শরীর ফিট রাখতে খাদ্যাভাসে পরিবর্তন আনার পরামর্শ দিয়েছেন পুষ্টিবিদেরা।

বিষয়টি নিয়ে চিকিৎসকরা বলছেন, বিবাহিত জীবনে ফিট থাকতে হলে আপনাকে দৈনন্দিন খাবারের প্রতি পূর্ণ মনোযোগী হতে হবে। কারণ সুখী দাম্পত্য জীবনের জন্য স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ভালো বোঝাপড়া থাকার পাশাপাশি দরকার স্বাস্থ্যকর দৈহিক সম্পর্ক। প্রাকৃতিকভাবে দৈহিক শক্তি বর্ধক খাদ্যই অনেক বেশি কার্যকরী হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে আজকাল। তাই বিয়ের পরও সুস্থ থাকতে কিছু নিয়ম বা খাদ্যাভ্যাস মেনে চলা জরুরী।

কেননা, বিয়ের পর শারীরিক-মানসিক নানা পরিবর্তন আসে। খাদ্যাভাস ও পরিবেশের পরিবর্তন, পরিবর্তিত জীবনযাত্রাসহ অনেক কিছই এর জন্য দায়ী। এ ছাড়া দীর্ঘদিন পর ঠিকানা বদলের কারণে মানসিক পরিবর্তনও আসে। তবে হতাশ হবেন না। বিয়ের পরও শরীর ফিট রাখতে কিছু বিশেষ খাদ্যাভ্যাসের ওপর গুরুত্ব দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন পুষ্টিবিদরা।
দেখে নিন কী কী খাবার খাবেন:

কলা :

কলায় রয়েছে ভিটামিন এ, বি, সি ও পটাশিয়াম। ভিটামিন বি ও পটাশিয়াম যৌনরস উৎপাদন বাড়ায়। এ ছাড়া কলায় রয়েছে ব্রোমেলিয়ান যা শরীরে টেস্টোস্টেরনের মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। শুধু তাই নয়, কলায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ শর্করা যা দেহের শক্তি বৃদ্ধি করে। তাই, দীর্ঘসময় ধরে দৈহিক মিলনে লিপ্ত হলেও ক্লান্তি আসবে না।

ডিম:

শরীরের দুর্বলতা এবং ক্লান্তি দূর করে দারুণ সহায়ক ডিম। তাই প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় ডিম অবশ্যই রাখতে হবে। প্রতিদিন সকালে, না পারেন সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন ১টি করে ডিম সিদ্ধ করে খান। এতে দৈহিক দুর্বলতার সমাধান হবে।

দুধ:

ফ্যাট জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলতে চান অনেকে। কেউ-কেউ মনে করেন দুধ মোটেই শরীরের পক্ষে ভালো নয়। প্রতিদিন মাখন তোলা দুধ খান। এতে প্রয়োজনীয় খনিজ ও ভিটামিন বিদ্যমান। কিন্তু যদি শরীরে দৈহিক শক্তির হরমোন তৈরি হওয়ার পরিমাণ বাড়াতে চান তাহলে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট জাতীয় খাবারের দরকার। তবে সবগুলোকে হতে হবে প্রাকৃতিক এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট।
মধু:
সকালে গরম জলের সঙ্গে পাতিলেবুর রস ও মধু খান। এতে ত্বকও ভালো থাকবে। তাই দৈহিক শক্তি বাড়াতে প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩/৪ দিন ১ গ্লাস গরম পানিতে ১ চামচ খাঁটি মধু মিশিয়ে পান করুন।রসুন:
ক্লান্তি দূর করে রসুন। যৌন উদ্দীপনা ধরে রাখে এবং শরীরে রক্ত প্রবাহ ঠিক রাখে এই রসুন। রসুনে রয়েছে এলিসিন নামের উপাদান যা দৈহিক ইন্দ্রিয়গুলোতে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়।

কফি:
কফির মধ্যে থাকা ক্যাফেইন শারীরিক মিলনের ইচ্ছা জাগায়। তাই কফি অবশ্যই পান করুন। ব্ল্যাক কফি পানে অধিক সুফল পাবেন। কফিতে যে ক্যাফেইন থাকে তা মিলনের মুড কার্যকর রাখে।
চকোলেট :
প্রেমর সঙ্গে চকোলেটের অন্য রকম সম্পর্ক রয়েছে। তাই চকোলেট খান এবং ভালোবেসে খান। এগুলো মিলনের উত্তেজনা ও দেহে শক্তির মাত্রা বাড়াতে সহায়ক। পিইএ’র সঙ্গে অ্যানান্ডামাইড মিলে অরগাজমে পৌঁছাতে সহায়তা করে