অবশেষে মুখ খুললো ক্যাসিনোতে আটক হওয়া দুই নারী!

ক্যাসিনো শুনলেই মনে হয় বিত্তশালীরা এখানে আসেন শুধু নিজেদের ভাগ্যে নিয়ে জুয়া খেলতে আর টাকার নেশায়। কিন্তু এর বিপরীত চিত্রও আছে, যা হয়তো কল্পনায় আসেনা অনেকের।

গতকাল বহুল আলোচিত র‌্যাবের ক্যাসিনো অভিযানে উঠে আসলো এমন দুজন তরুণীর কথা। গ্রেফতারের পর র‌্যাব সদস্যদের কাছে তাদের আকুতি ওয়েস্টার্ন ড্রেস চেঞ্জ করে থ্রি-পিস পড়তে দেয়ার।

তারা জানান শুধুমাত্র টাকার জন্যই তারা এখানে চাকুরী করেন। এসময় তারা বলেন জুয়ার বোর্ডে চাকরি করাটাই কি তাদের অপরাধ?

ফকিরাপুল ক্লাব থেকে আটককৃত দুই তরুণীর একজন জানান, এখানে চাকরির কথা তার স্বামী জানলেও তার পরিবারের কেউ জানেন না।

এদের একজন নিজেকে রিসিপশনিস্ট ও আরেকজন জুয়ার বোর্ডের ডিলার হিসেবে পরিচয় দেন। ডিলারের কাজ জানতে চাইলে ঐ তরুণী বলেন জুয়ার বোর্ডে কার্ড শো করা।

এসময় তারা আরও বলেন. এখানে কোন আপত্তিকার কাজের সুযোগ নেই, সবখানে সিসি ক্যামেরা লাগানো থাকে। আর জুয়ারিরা তাদের টাকার হিসেব মিলাতেই ব্যস্ত থাকেন কোন মেয়ের দিকে তাকানোর মতো অবস্থাও তাদের থাকেনা।

এই দুই তরুণীর বেতন ও কাজের সময় জানতে চাইলে তারা জানান, রিসিপশন্সি হিসেবে ২১ হাজার ও ডিলার হিসেবে ১০ হাজার টাকা বেতন পান তারা। তাদের দৈনিক ১২ ঘন্টা করেও ডিউটি করতে হয় বলে তারা জানান। তারা আরও জানান, এখানে মোট ৬ জন মেয়ে কাজ করে শিফট অনুযায়ী।

এসময় তারা নিজেদের বারবার নির্দোষ দাবি করে আসেন র‌্যাব সদস্যদের কাছে।