টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলতে পারবে না বাংলাদেশ

চলতি ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের চট্টগ্রাম পর্বের জন্য নানা রদবদলে এরই মধ্যে দল স্কোয়াড ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। সিরিজে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে আজ সন্ধ্যায় জিম্বাবুয়ের মুখোমুখি হবেন সাকিব আল হাসানরা।

এদিকে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের পরিসংখ্যান খুবই হতাশাজনক। বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টিতে ভালো খেলে না। এটা কোনো গোপন কথা নয়। অধিনায়ক সাকিব আল হাসান যখনই সুযোগ পাচ্ছেন সেটা জানিয়ে দিচ্ছেন।

তবে এ ফরম্যাটে বাংলাদেশ আফগানিস্তানের চেয়ে কতটা পিছিয়ে সেটা র‍্যাঙ্কিংয়ে দুই দলের ব্যবধান টেনে বারবার বলছেন সাকিব। আসলেই কতটা পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ?

এদিকে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে সরাসরি খেলবে র‍্যাঙ্কিংয়ে সাতে থাকা আফগানিস্তান। দশে থাকা বাংলাদেশের সে সুযোগ হচ্ছে না। বিশ্বকাপের ‘সুপার টুয়েলভে’ জায়গা করতে চাইলে টানা দ্বিতীয়বারের মতো প্রথম রাউন্ডে পার করে আসতে হবে।

গত বিশ্বকাপেও এ রাউন্ডে থাকা আফগানিস্তান তিন বছরের মধ্যে টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের অবস্থান গড়ে নিলেও এখনো আগের অবস্থানে রয়ে গেছে বাংলাদেশ।

অথচ এর মাঝে একটি টি-টোয়েন্টি এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলেছে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে টানা দুটি সিরিজে হারিয়েছে। তবু এখনো অধিকাংশ টি-টোয়েন্টি ম্যাচই বাংলাদেশ শুরু করছে আন্ডারডগ হিসেবেই।

এদিকে চলতি ত্রিদেশীয় সিরিজে গ্রুপ পর্বের বাকি দুই ম্যাচে জয় পেলেই ওয়েস্ট ইন্ডিজকে অন্তত এক ম্যাচের জন্য হলেও টপকে যাবে বাংলাদেশ। কিন্তু নয়ে উঠে এলেও টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের করুণ দশা আড়াল করা যাবে না।

কারণ র‍্যাঙ্কিংয়ে দশে থাকলেও টি-টোয়েন্টিতে জয় পরাজয়ের অনুপাতে বাংলাদেশ অন্য অনেক দলের চেয়েই পিছিয়ে। এখনো পর্যন্ত ৮৭ ম্যাচ খেলে মাত্র ২৭টি জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। হেরেছে ৫৮ ম্যাচে। অর্থাৎ প্রতিটি জয়ের বিপরীতে দুটির বেশি হার আছে বাংলাদেশের। বাংলাদেশের জয় পরাজয় অনুপাত ০.৪৬৫।