দিন-দুপুরে সবার সামনে যুবকের কান কেটে পলিথিনে ভরলেন আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে

কে উত্ত্যক্তে বাধা দেয়ায় শত শত লোকের সামনে দিনে-দুপুরে সোহাগ সরদার নামে এক স্বামীর কান কেটে দিয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

সোমবার বিকেল ৫টার দিকে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার পাটগাতী বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় সোহাগ সরদারকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার বিকেলে টুঙ্গিপাড়া উপজেলার শ্রীরামকান্দি গ্রামের শওকত সরদারের ছেলে সোহাগ সরদার ঢাকা যাওয়ার জন্য পাটগাতী বাসস্ট্যান্ড থেকে ঢাকাগামী একটি বাস কাউন্টার থেকে টিকিট সংগ্রহ করেন। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শেখ শুকুর আহমেদের ছেলে রাজিব শেখ ও তার কয়েকজন সঙ্গী ধারালো অস্ত্র দিয়ে সোহাগ সরদারকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। সেই সঙ্গে সোহাগ সরদারের বাম কান কেটে পলিথিন ব্যাগের মধ্যে ভরে উল্লাস করতে করতে চলে যান রাজিব শেখ ও তার সঙ্গীরা।

মারাত্মক আহত অবস্থায় সোহাগকে প্রথমে টুঙ্গিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপেক্সে ভর্তি করা হয়। পরবর্তীতে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহত সোহাগ সরদার শ্রীরামকান্দি গ্রামের শওকত সরদারের ছেলে।

সোহাগ সরদার বলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শেখ শুকুর আহমেদের ছেলে রাজিব শেখ দলবল নিয়ে হামলা করে আমার কান কেটে নিয়ে যায়। দীর্ঘদিন ধরে আমার স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করে আসছে রাজিব শেখ। এতে বাধা দেয়ায় আমার কান কেটে দিয়েছে রাজিব শেখ ও তার সঙ্গীরা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে রাজিব শেখের বাবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শেখ শুকুর আহমেদ বলেন, তাদের সঙ্গে আমার পারিবারিক ও জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ রয়েছে। বিরোধের জের ধরে আমার ছেলে তার সহযোগীরা এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে হয়তো।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্ত্রীকে উত্ত্যক্ত করায় কয়েক মাস আগে রাজিবকে মারধর করে সোহাগ সরদার। এ ঘটনায় টুঙ্গিপাড়া থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। একই সঙ্গে ওই ঘটনার প্রতিশোধ নিতে এবার প্রকাশ্যে সোহাগের কান কেটে নিলেন রাজিব।