গ্রে’ফতার হলেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের মহাসচিব

টাকা আত্মসাতের অ’ভিযোগে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের মহাসচিব ড. সাইফুল ইস’লাম দিলদারকে গ্রে’ফতার করেছে পু’লিশ।

মঙ্গলবার রাতে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে উপজে’লার দাউদপুর পুটিনা থেকে আ’ট’কের পর বুধবার সকালে একটি মা’মলায় তাকে গ্রে’ফতার দেখিয়েছে রূপগঞ্জ থা*না পু’লিশ।

উপজে’লার দাউদপুর ইউনিয়নের পুটিনা এলাকার আইআরডি নামক একটি এনজিওর গ্রাহকদের প্রায় ৪৩ লাখ টাকা আত্মসাতের অ’ভিযোগে তাকে তাকে গ্রে’ফতার দেখানো হয়েছে। তিনি এনজিওটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং উপজে’লার পুটিনা এলাকার মৃ’ত ফকরুল ভূইয়ার ছেলে।

রূপগঞ্জ থা*নার পরিদর্শক (অ’পারেশন) রফিকুল হক মা’মলার এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, দাউদপুর ইউনিয়নের সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অধিক মুনাফার প্রলো’ভন দেখিয়ে আইআরডি নামক একটি এনজিও খুলে প্রায় ২ কোটি টাকা আমানত সংগ্রহ করা হয়। এরপর কয়েক মাস টাকার লভ্যাংশ গ্রাহদের দেয়া হলেও হঠাৎ এনজিও বন্ধ করে দিয়ে টাকা আত্মসাৎ করেন এনজিওটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. সাইফুল ইস’লাম দিলদার। গ্রাহকরা প্রায় এক বছর ধরে তাদের পাওনা টাকা ফেরতের জন্য বিভিন্ন স্থানে ঘুরছিলেন। সাইফুল ইস’লাম দিলদারের কাছে চাইতে গেলে তিনি পু’লিশ দিয়ে হয়’রানি করতেন বলেও জানান গ্রাহকরা।

গত মঙ্গলবার বিকেলে সাইফুল ইস’লাম দিলদার নিজ বাড়ি দাউদপুর পুটিনায় আসলে সব গ্রাহক একত্রিত হয়ে তার বাড়ি ঘেরাও করে তাকে অব’রুদ্ধ করে রাখে। খবর পেয়ে রূপগঞ্জ থা*না পু’লিশ তাকে উ’দ্ধার করে। ১৫ জন গ্রাহকের ৪৩ লাখ টাকা আত্মসাতের অ’ভিযোগের ভিত্তিতে তাদের পক্ষে স্থানীয় মাহফুজা বেগম নামে এক নারী রূপগঞ্জ থা*নায় মা’মলা দায়ের করেন। বুধবার সকালে এ মা’মলায় গ্রে’ফতার দেখিয়ে পু’লিশ ড. সাইফুল ইস’লাম দিলদারকে নারায়গঞ্জ আ’দালতে পাঠায়।